সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:২০ অপরাহ্ন

নীতিমালা

অনলাইন গণমাধ্যম নীতমিালা

 

সশস্ত্র বাহনিীসহ দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত অন্য কোনো বাহিনীর প্রতি কটাক্ষ, বিদ্রূপ অবমাননা করা যাবে না অনলাইন গণমাধ্যমে। অপরাধ নিবারণ ও নির্অণয়ে অথবা অপরাধীদরে দণ্ড বিধানে নিয়োজিত সরকারি  কর্মকর্তাদের ভাবর্মূতি নষ্ট করে এমন তথ্য-উপাত্ত প্রচার, প্রকাশ ও সম্প্রচার করা যাবে না। এমন তথ্য প্রচার-সম্প্রচার করা যাবে না, যা রাষ্ট্রদ্রোহমূলক ও ধ্বংসাত্মক ঘটনা প্রর্দশন করে। এসব বধিনিষেধ রেখে জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১৫-এর খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ জন্য গঠতি কমটিি খসড়াটি চূড়ান্ত করে তথ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয় জনমত যাছাইয়রে পর নীতিমালা পুরোপুরি চূড়ান্ত করে অনুমদনের জন্য মন্ত্রিসভা বৈঠকে পাঠাবে। অনুমোদনের পর প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। খসড়া নিতিমালা প্রণয়ন কমটিি ও তথ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বসেরকারি টলেভিশিন ও বতোররে জন্য গত বছররে ৫ আগস্ট তথ্য মন্ত্রণালয় জাতীয় সম্প্রচার নীতমিালা প্রণয়ন করছে।ে ওই নীতমিালা বাস্তবায়নরে জন্য জাতীয় সম্প্রচার কমশিন গঠন করা হব।ে এর জন্য বধিমিালা চূড়ান্ত হয়ছেে কয়কে দনি আগ।ে এই জাতীয় সম্প্রচার কমশিনই জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নয়িন্ত্রণরে ক্ষমতা পতেে পারে বলে জানা গছে।ে

তথ্য মন্ত্রণালয়রে সচবি মরতুজা আহমদ বলনে, অংশীজনদরে সঙ্গে বঠৈক করে ধাপে ধাপে এই নীতমিালা চূড়ান্ত করা হব।ে নীতমিালা সংশ্লষ্টিদরে নয়িইে তরৈি করা হচ্ছ।ে

খসড়া নীতমিালা তরৈরি লক্ষ্যে তথ্যপ্রযুক্তি বশিষেজ্ঞ মোস্তাফা জব্বারকে প্রধান করে একটি উপকমটিি করা হয়ছেলি। মোস্তাফা জব্বার বলনে, ‘আমরা কয়কে মাস আগে খসড়া চূড়ান্ত করছে।ি জনমত নওেয়ার পর এটি চূড়ান্ত করা হব।ে অনলাইন গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনতইে এটি করা হচ্ছ।ে’

‘ভুঁইফোর অনলাইন গণমাধ্যম সম্পাদকদরে নয়িে নীতমিালা’ : প্রতষ্ঠিতি অনলাইন গণমাধ্যম সম্পাদকদরে বশেরি ভাগই এই খসড়া নীতমিালা ও তা প্রণয়নরে প্রক্রয়িা নয়িে নাখোশ। তাঁরা বলছনে, এটি করা হয়ছেে ভুঁইফোর কছিু অনলাইন গণমাধ্যমরে সম্পাদকসহ সংশ্লষ্টি ব্যক্তদিরে নয়ি।ে এই নীতমিালা অনুমোদন হলে সরকার এই খাত যথচ্ছে নয়িন্ত্রণরে সুযোগ পাব।ে নীতমিালা প্রণয়ন কমটিরি সদস্য এক সম্পাদক নাম প্রকাশ না করার র্শতে বলছেনে, ‘একটি সভায় আমি গয়িছেলিাম। এরপর আর যাইন।ি’ দ্য রপর্িোট ২৪ডটকমরে সম্পাদক তৗেহদিুল ইসলাম মন্টিু বলনে, ‘আন্ডারগ্রাউন্ড অনলাইন পত্রকিার সম্পাদকদরে নয়িে নীতমিালা করা হয়ছে।ে নীতমিালায় আরো বভিন্নি বষিয় সংযোজন-বয়িোজন করা উচতি।’

নবিন্ধন লাগবে : চূড়ান্ত খসড়া নীতমিালা অনুসার,ে অনলাইন গণমাধ্যম বলতে বাংলা ইংরজেি বা অন্য কোনো ভাষায় প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে ইন্টারনটে ব্যবহাররে মাধ্যমে ভডিওি, অডওি, টক্সেট বা মাল্টমিডিয়িার অন্য কোনো রূপে উপস্থাপতি তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ বা সম্প্রচারকারী ব্যক্ত,ি সংস্থা বা প্রতষ্ঠিানকে বোঝাব।ে সব অনলাইন গণমাধ্যমকে নর্দিষ্টি র্কতৃপক্ষরে কাছ থকেে নবিন্ধন নতিে হব।ে নবিন্ধন র্কতৃপক্ষ বধিি অনুসরণ করে নবিন্ধন দবে।ে অনলাইন গণমাধ্যমরে জন্য কোনো ধরনরে জামানত রাখতে হবে না। সম্পাদকসহ সাংবাদকিদরে শক্ষিাগত যোগ্যতা, অভজ্ঞিতা, র্আথকি সংগত,ি প্রয়োজনীয় অবকাঠামো ও বতেন কাঠামো বাস্তবায়ন সাপক্ষেে নবিন্ধন দওেয়া হব।ে কাগজ বা সম্প্রচাররে জন্য নবিন্ধতি, ডক্লিারশেন বা লাইসন্সেপ্রাপ্ত গণমাধ্যমকে অনলাইন প্রচার, প্রকাশ বা সম্প্রচাররে জন্য নবিন্ধতি হতে হব।ে সরকার অংশীজনদরে সঙ্গে আলাপ করে বধিান প্রণয়ন করব।ে বধিমিালা প্রণয়নরে আগ র্পযন্ত তথ্য মন্ত্রণালয় এ বষিয়গুলো দখেভাল করব।ে

র্শত পূরণ সাপক্ষেে বজ্ঞিাপনসহ সরকারি সুবধিা মলিবে : খসড়া নীতমিালায় বলা হয়ছে,ে নবিন্ধন পাওয়া অনলাইন গণমাধ্যম সরকাররে স্বীকৃত প্রতষ্ঠিান হসিবেে র্শত পূরণ সাপক্ষেে ন্যায় ও সমতার ভত্তিতিে সরকারি বজ্ঞিাপনসহ সরকাররে সব সুবধিা পাব।ে প্রতটিি অনলাইন গণমাধ্যমরে সুনর্দিষ্টি দায়ত্বি ও র্কতব্যরে তালকিা ও সম্পাদকীয় নীতমিালা থাকতে হব।ে তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ ও সম্প্রচার করার ক্ষত্রেে সন্সেরশপি অব ফল্মিস অ্যাক্ট-১৯৬৩, তথ্যপ্রযুক্তি আইন-২০০৬, কপি রাইট, ট্রডে র্মাকস, প্যাটন্টেস ডজিাইন ও জআিই আইনসহ অন্যান্য মধোস্বত্বগুলো বা দশেরে প্রচলতি আইন ও এর অধীনে প্রণীত বধিবিধিান লঙ্ঘন করে বা কোনো জাতীয় নীতমিালার পরপিন্থী কোনো তথ্য প্রচার, প্রকাশ ও সম্প্রচার করা যাবে না। এ ধরনরে গণমাধ্যমে প্রচারতি, প্রকাশতি বা সম্প্রচারতি তথ্যে সংশ্লষ্টি পক্ষগুলোর যুক্তি যথাযথভাবে উপস্থাপনরে সুযোগ থাকতে হব।ে

অপরাধীদরে কাজরে কৗেশল প্রকাশ করা যাবে না : খসড়া নীতমিালা অনুসার,ে অনলাইন গণমাধ্যমে কোনো ধরনরে অশোভন উক্তি বা আচরণ করা যাবে না এবং অপরাধীদরে র্কাযকলাপরে কৗেশল প্রর্দশন, যা অপরাধ সংগঠনরে নতুন পদ্ধতি প্রর্বতনে সহায়ক হতে পার-ে এমন তথ্য-উপাত্ত বা দৃশ্য প্রকাশ বা সম্প্রচার করা যাবে না।

মৃতদহে প্রর্দশন নয় : নীতমিালায় বলা হয়ছে,ে সত্যকিার হত্যাকাণ্ড, র্দুঘটনায় নহিত ও আত্মহত্যাকারীর মৃতদহে এবং নর্যিাততি, র্ধষতি ও ব্যভচিাররে দ্বারা ক্ষতগ্রিস্ত কোনো নারী বা শশিুর স্থরি বা চলচ্চত্রি প্রর্দশন করা যাবে না। মানবকি অনুভূততিে আঘাত করে এমন কোনো মানুষ বা প্রাণীর নর্যিাতনরে দৃশ্য বা তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ বা সম্প্রচার করা যাবে না।

দশেীয় সাংস্কৃতকি মূল্যবোধরে পরপিন্থী তথ্য প্রচার করা যাবে না : নীতমিালায় উল্লখে আছ,ে দশেীয় সাংস্কৃতকি মূল্যবোধরে পরপিন্থী এবং অশ্লীল, হংিসাত্মক ও সন্ত্রাসমূলক তথ্য-দৃশ্য প্রচার করা যাবে না। সংস্কৃতরি সমৃদ্ধরি জন্য প্রত্যন্ত অঞ্চলরে শল্পি ও শল্পিীদরে অনুসন্ধান করে তাদরে অনুপ্রাণতি করতে হবে এবং জনসমক্ষে তাদরে প্রতভিা তুলে ধরতে হব।ে রাষ্ট্রভাষাকে যোগ্য র্মযাদায় প্রতষ্ঠিতি করার লক্ষ্যে তথ্য পাঠ, প্রচার, প্রকাশ ও সম্প্রচারে কোনোক্রমইে বাংলা প্রমতি বানান বা উচ্চারণরে মান শথিলি করা যাবে না। প্রয়োজনে আঞ্চলকি ভাষা ব্যবহার করা যাব।ে তবে কোনোক্রমইে কোনো অঞ্চলরে প্রতি কৗেতুক বা পরহিাস করার জন্য আঞ্চলকি ভাষা ব্যবহার করা যাবে না। জনসংখ্যা বৃদ্ধরি ভয়াবহতা সর্ম্পকে জনসচতেনতা গড়ে তোলার ক্ষত্রেে শালীনতা, রুচি ও দশেীয় কৃষ্টরি প্রতি লক্ষ রখেে জনসংখ্যা নয়িন্ত্রণ র্কাযক্রমরে তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করতে হব।ে

অশ্লীলতা কংিবা চরমপন্থা উসকে দলিে ব্যবস্থা : নীতমিালায় বলা হয়ছে,ে ছব,ি লখো, র্কাটুনে অশ্লীলতা কংিবা চরমপন্থা উসকে দলিে সইে র্পোটালরে বরিুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নওেয়া যাব।ে

সশস্ত্র বাহনিী বা অন্য কোনো বাহনিীর প্রতি কটাক্ষ করা যাবে না : বজ্ঞিাপন বষিয়ে বলা হয়ছে,ে বজ্ঞিাপনে সশস্ত্র বাহনিী অথবা দশেরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নয়িোজতি অন্য কোনো বাহনিীর প্রতি কটাক্ষ, বদ্রিূপ বা অবমাননা করা যাবে না। বাণজ্যিকি কোনো বজ্ঞিাপনে মডলে হসিবেে প্রতরিক্ষা বাহনিী, পুলশি বা অন্য কোনো আইনশৃঙ্খলা বাহনিীর সদস্যদরে প্রর্দশন করা যাবে না।

বজ্ঞিাপন র্ধমীয় বা রাজনতৈকি বশ্বিাসরে প্রতি পীড়াদায়ক হতে পারবে না : রাজনীতকি, বদিশেি কূটনীতকি ও জাতীয় বীরদরে গণমাধ্যমে প্রচারতি পণ্য বা সবোর বজ্ঞিাপনে অর্ন্তভুক্ত করা যাবে না। তবে গণসচতেনতা ও সমাজ সংস্কারমূলক বজ্ঞিাপনে দশেরে স্বনামধন্য নাগরকিদরে সম্মতক্রিমে বজ্ঞিাপনে অর্ন্তভুক্ত করা যাব।ে বজ্ঞিাপনরে ভাষা, দৃশ্য কংিবা নর্দিশেনা কোনো র্ধমীয় বা রাজনতৈকি বশ্বিাসরে প্রতি পীড়াদায়ক হতে পারবে না। র্ধমীয় বশ্বিাসকে ব্যবহাররে মাধ্যমে পণ্যরে বাণজ্যিকি উদ্দশ্যে হাসলিরে লক্ষ্যে মসজদি, মন্দরি, গর্জিা ইত্যাদি র্ধমীয় স্থানরে স্থরি কংিবা চলমান চত্রি উপস্থাপন করা যাবে না। পণ্যরে বজ্ঞিাপনে বএিসটআিইয়রে মান নয়িন্ত্রণ সনদপত্র উপস্থাপন করতে হব।ে এ ছাড়া অন্যান্য ক্ষত্রেে সংশ্লষ্টি র্কতৃপক্ষরে মান নয়িন্ত্রণ সনদপত্র উপস্থাপন করতে হব।ে প্রতযিোগী পণ্যরে সঙ্গে তুলনা বা নন্দিা বা শ্রষ্ঠেত্ব দাবি বা অন্য পণ্য সর্ম্পকে অর্মযাদাকর উক্তি করা যাবে না। বজ্ঞিাপনরে অডওিতে বকিৃত অশ্লীল শব্দ, উক্ত,ি সংলাপ, জংিগলে ও গালাগাল অর্ন্তভুক্ত করা যাবে না। নকল বজ্ঞিাপন প্রকাশ বা সম্প্রচার করা যাবে না। ওষুধপত্র, চকিৎিসা পণ্যরে বজ্ঞিাপনে বশিষেজ্ঞ চকিৎিসকরে পরার্মশ প্রদান এবং তাঁদরে পরচিয় প্রকাশ করা যাবে না। তবে এইডস, ডায়রয়িা, ডঙ্গেু, যক্ষ্মা, মহামারি প্রতরিোধ ও মাদক নয়িন্ত্রণ এসডি নক্ষিপে- এসব ক্ষত্রেে অনুমতক্রিমে পরচিয়সহ বশিষেজ্ঞদরে পশোগত পরার্মশ দখোনো যতেে পার।ে বজ্ঞিাপনে মডলেদরে পোশাক শালীন ও সামঞ্জস্যর্পূণ হতে হব।ে গুঁড়ো দুধরে বজ্ঞিাপনে পাঁচ বছররে কম বয়সরে শশিুদরে মডলে হসিবেে ব্যবহার করা যাবে না বা ছবি প্রর্দশন করা যাবে না। এ ছাড়া গুঁড়ো দুধরে বজ্ঞিাপনে ‘শশিুদরে জন্য মায়রে দুধরে বকিল্প নইে’ এবং ‘এই গুঁড়ো দুধ এক বছররে কম বয়সী শশিুদরে জন্য নয়’- বাক্য দুটি সুপার ইম্পোজ করে দখোতে হব।ে পত্র মতিালী, নাইট ক্লাব, বার, সগিারটে, বড়িি চুরুটরে বজ্ঞিাপন প্রচারযোগ্য নয়।

প্রচলতি আইনে অনলাইন পত্রকিা প্রকাশ 

নউিজ পপোরস ওর্নাস অ্যাসোসয়িশেন অব বাংলাদশে (নোয়াব) এক ববিৃততিে নতুন করে নবিন্ধন নয়, বরং প্রচলতি আইন ও নীতমিালার আওতায় অনলাইন গণমাধ্যম পরচিালনার দাবি জানয়িছে।ে ছাপা পত্রকিার অনলাইন সংস্করণসহ সব অনলাইন গণমাধ্যমরে নবিন্ধন বষিয়ে সরকাররে সাম্প্রতকি উদ্যোগরে পরপ্রিক্ষেতিে আজ মঙ্গলবার এই দাবি জানায় সংগঠনট।ি

ববিৃততিে বলা হয়, ছাপা পত্রকিাগুলো সরকাররে সব নয়িম মনেে চলছ।ে সময়রে প্রয়োজনে ও বশ্বৈকি প্রক্ষোপটে ছাপা পত্রকিাগুলোর অনলাইন সংস্করণ রয়ছে,ে যগেুলোর মাধ্যমে দশেরে পাঠক ছাড়াও প্রবাসী বাঙালরিা তাৎক্ষণকি দশেরে খবরাখবর জানতে পারছনে। তাই এসব পত্রকিার অনলাইন সংস্করণরে জন্য আলাদা নবিন্ধন কোনোভাবইে যুক্তসিংগত নয়। আর এর প্রয়োজন নইে বলওে মনে করে নোয়াব।

গত ৬ আগস্ট অনলাইন নীতমিালার খসড়া তথ্য মন্ত্রণালয়রে ওয়বেসাইটে প্রকাশ করা হয়। সখোনে জাতীয় সম্প্রচার কমশিনরে মাধ্যমে অনলাইন গণমাধ্যম পরচিালনার কথা বলা হলওে এটি চূড়ান্ত হওয়ার আগইে তথ্য অধদিপ্তর এক তথ্য ববিরণীর মাধ্যমে অনলাইন পত্রকিার নবিন্ধন র্কাযক্রম চালু কর।ে আবদেনরে শষে সময় ১৫ ডসিম্বের। নীতমিালা বা কমশিন হওয়ার আগে তথ্য মন্ত্রণালয়রে নর্বিাহী আদশেে অনলাইন পত্রকিার নবিন্ধন র্কাযক্রম শুরুর এই ঘোষণা স্ববরিোধী ও উদ্দশ্যেমূলক বলে মনে করে নোয়াব।

অনলাইন নীতমিালায় নবিন্ধন র্কতৃপক্ষরে কথা বলা হলওে ওই ‘র্কতৃপক্ষ’ (কমশিন) নর্ধিারণ না করইে সরকার তথ্য অধদিপ্তররে কাছে নবিন্ধনরে দায়ত্বি দয়িছে,ে যা যুক্তসিংগত নয় বলে মনে করছে সংগঠনট।ি এ অবস্থায় নোয়াব আশঙ্কা করছ,ে কমশিন গঠতি হওয়ার আগে সরকার অনলাইন গণমাধ্যমরে নবিন্ধন বা পরচিালনার বষিয়গুলো নজি এখতয়িারে রাখলে এর ওপর সরকাররে নয়িন্ত্রণ কঠোর হব,ে যা মুক্ত সাংবাদকিতার অন্তরায় হয়ে উঠতে পার।ে তা ছাড়া এই নবিন্ধনকে কন্দ্রে করে দলীয় পরচিয় দখো, হয়রানি বা র্আথকি লনেদনেরে মতো র্স্পশকাতর অভযিোগ ওঠাও দশেরে র্আথসামাজকি বাস্তবতায় অসম্ভব ব্যাপার নয়।

প্রস্তাবতি অনলাইন নীতমিালায় কমশিন গঠন করে অনলাইন গণমাধ্যমগুলো পরচিালনার কথা বলা হলওে ওই কমশিনরে সুপারশি বাস্তবায়ন করার ক্ষমতা থাকবে না। ফলে কমশিন সরকার, বশিষে করে তথ্য মন্ত্রণালয়রে ওপর নর্ভিরশীল একটি প্রতষ্ঠিানে পরণিত হবে বলে নোয়াব মনে কর।ে অতীত অভজ্ঞিতায় দখো গছে,ে এ ধরনরে উদ্যোগ সংবাদমাধ্যমরে স্বাধীনতা নশ্চিতি করার বদলে ক্ষুণ্ন কর।ে

র্বতমানে বাংলাদশে ইনফরমশেন সকিউিরটিি পলসিি গাইডলাইন ২০১৩, ন্যাশনাল ব্রডকাস্টংি পলসিি (এনবপি)ি ২০১৪, ইনফরমশেন অ্যান্ড কমউিনকিশেন টকেনোলজি (সংশোধতি) আইন ২০১৩, খসড়া সাইবার সকিউিরটিি আইন ২০১৫ প্রভৃতি আইন ও নীতমিালা রয়ছে,ে যার সঙ্গে অনলাইন গণমাধ্যমরে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সর্ম্পক রয়ছে।ে তাই নতুন কোনো নীতমিালা প্রণয়ন না করে এসব আইনসহ ছাপা পত্রকিার জন্য প্রযোজ্য আইন ও নীতমিালাসমূহ অনলাইন গণমাধ্যমরে ক্ষত্রেওে প্রযোজ্য হতে পারে বলে মনে করে নোয়াব।

অনলাইন পত্রকিা নবিন্ধনরে অন্যতম উদ্দশ্যে হসিবেে এ ধরনরে গণমাধ্যমরে জন্য সরকারি সুযোগ-সুবধিা নশ্চিতি করার কথা বলা হয়ছে।ে এ ছাড়া অপসাংবাদকিতা রোধ করার কথাও বলা হয়ছে।ে সংবাদপত্ররে প্রকাশক ও সম্পাদকদরে এই সংগঠনরে র্পযবক্ষেণ হচ্ছ,ে প্রকৃতপক্ষে এগুলো কীভাবে করা হব,ে তা স্পষ্ট নয়।

নোয়াব মনে কর,ে এই নীতমিালার সঙ্গে গণমাধ্যমরে স্বাধীন মত প্রকাশরে অধকিারসহ নতুন এই শল্পিরে ভবষ্যিৎ জড়তি। তাই তাড়াহুড়ো না করে যৌক্তকি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ও বাস্তবতার নরিখিে যকেোনো উদ্যোগ গ্রহণ করাই বাঞ্ছনীয়।

নউিজ পপোরস ওর্নাস অ্যাসোসয়িশেন অব বাংলাদশে (নোয়াব) এক ববিৃততিে নতুন করে নবিন্ধন নয়, বরং প্রচলতি আইন ও নীতমিালার আওতায় অনলাইন গণমাধ্যম পরচিালনার দাবি জানয়িছে।ে ছাপা পত্রকিার অনলাইন সংস্করণসহ সব অনলাইন গণমাধ্যমরে নবিন্ধন বষিয়ে সরকাররে সাম্প্রতকি উদ্যোগরে পরপ্রিক্ষেতিে আজ মঙ্গলবার এই দাবি জানায় সংগঠনট।ি

ববিৃততিে বলা হয়, ছাপা পত্রকিাগুলো সরকাররে সব নয়িম মনেে চলছ।ে সময়রে প্রয়োজনে ও বশ্বৈকি প্রক্ষোপটে ছাপা পত্রকিাগুলোর অনলাইন সংস্করণ রয়ছে,ে যগেুলোর মাধ্যমে দশেরে পাঠক ছাড়াও প্রবাসী বাঙালরিা তাৎক্ষণকি দশেরে খবরাখবর জানতে পারছনে। তাই এসব পত্রকিার অনলাইন সংস্করণরে জন্য আলাদা নবিন্ধন কোনোভাবইে যুক্তসিংগত নয়। আর এর প্রয়োজন নইে বলওে মনে করে নোয়াব।

গত ৬ আগস্ট অনলাইন নীতমিালার খসড়া তথ্য মন্ত্রণালয়রে ওয়বেসাইটে প্রকাশ করা হয়। সখোনে জাতীয় সম্প্রচার কমশিনরে মাধ্যমে অনলাইন গণমাধ্যম পরচিালনার কথা বলা হলওে এটি চূড়ান্ত হওয়ার আগইে তথ্য অধদিপ্তর এক তথ্য ববিরণীর মাধ্যমে অনলাইন পত্রকিার নবিন্ধন র্কাযক্রম চালু কর।ে আবদেনরে শষে সময় ১৫ ডসিম্বের। নীতমিালা বা কমশিন হওয়ার আগে তথ্য মন্ত্রণালয়রে নর্বিাহী আদশেে অনলাইন পত্রকিার নবিন্ধন র্কাযক্রম শুরুর এই ঘোষণা স্ববরিোধী ও উদ্দশ্যেমূলক বলে মনে করে নোয়াব।

অনলাইন নীতমিালায় নবিন্ধন র্কতৃপক্ষরে কথা বলা হলওে ওই ‘র্কতৃপক্ষ’ (কমশিন) নর্ধিারণ না করইে সরকার তথ্য অধদিপ্তররে কাছে নবিন্ধনরে দায়ত্বি দয়িছে,ে যা যুক্তসিংগত নয় বলে মনে করছে সংগঠনট।ি এ অবস্থায় নোয়াব আশঙ্কা করছ,ে কমশিন গঠতি হওয়ার আগে সরকার অনলাইন গণমাধ্যমরে নবিন্ধন বা পরচিালনার বষিয়গুলো নজি এখতয়িারে রাখলে এর ওপর সরকাররে নয়িন্ত্রণ কঠোর হব,ে যা মুক্ত সাংবাদকিতার অন্তরায় হয়ে উঠতে পার।ে তা ছাড়া এই নবিন্ধনকে কন্দ্রে করে দলীয় পরচিয় দখো, হয়রানি বা র্আথকি লনেদনেরে মতো র্স্পশকাতর অভযিোগ ওঠাও দশেরে র্আথসামাজকি বাস্তবতায় অসম্ভব ব্যাপার নয়।

প্রস্তাবতি অনলাইন নীতমিালায় কমশিন গঠন করে অনলাইন গণমাধ্যমগুলো পরচিালনার কথা বলা হলওে ওই কমশিনরে সুপারশি বাস্তবায়ন করার ক্ষমতা থাকবে না। ফলে কমশিন সরকার, বশিষে করে তথ্য মন্ত্রণালয়রে ওপর নর্ভিরশীল একটি প্রতষ্ঠিানে পরণিত হবে বলে নোয়াব মনে কর।ে অতীত অভজ্ঞিতায় দখো গছে,ে এ ধরনরে উদ্যোগ সংবাদমাধ্যমরে স্বাধীনতা নশ্চিতি করার বদলে ক্ষুণ্ন কর।ে

র্বতমানে বাংলাদশে ইনফরমশেন সকিউিরটিি পলসিি গাইডলাইন ২০১৩, ন্যাশনাল ব্রডকাস্টংি পলসিি (এনবপি)ি ২০১৪, ইনফরমশেন অ্যান্ড কমউিনকিশেন টকেনোলজি (সংশোধতি) আইন ২০১৩, খসড়া সাইবার সকিউিরটিি আইন ২০১৫ প্রভৃতি আইন ও নীতমিালা রয়ছে,ে যার সঙ্গে অনলাইন গণমাধ্যমরে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সর্ম্পক রয়ছে।ে তাই নতুন কোনো নীতমিালা প্রণয়ন না করে এসব আইনসহ ছাপা পত্রকিার জন্য প্রযোজ্য আইন ও নীতমিালাসমূহ অনলাইন গণমাধ্যমরে ক্ষত্রেওে প্রযোজ্য হতে পারে বলে মনে করে নোয়াব।

অনলাইন পত্রকিা নবিন্ধনরে অন্যতম উদ্দশ্যে হসিবেে এ ধরনরে গণমাধ্যমরে জন্য সরকারি সুযোগ-সুবধিা নশ্চিতি করার কথা বলা হয়ছে।ে এ ছাড়া অপসাংবাদকিতা রোধ করার কথাও বলা হয়ছে।ে সংবাদপত্ররে প্রকাশক ও সম্পাদকদরে এই সংগঠনরে র্পযবক্ষেণ হচ্ছ,ে প্রকৃতপক্ষে এগুলো কীভাবে করা হব,ে তা স্পষ্ট নয়।

নোয়াব মনে কর,ে এই নীতমিালার সঙ্গে গণমাধ্যমরে স্বাধীন মত প্রকাশরে অধকিারসহ নতুন এই শল্পিরে ভবষ্যিৎ জড়তি। তাই তাড়াহুড়ো না করে যৌক্তকি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ও বাস্তবতার নরিখিে যকেোনো উদ্যোগ গ্রহণ করাই বাঞ্ছনীয়।