শিক্ষার্থীকে ব্ল্যাকমেইলিং করে যৌন নিপীড়ন

সিদ্ধিরগঞ্জে অক্সফোর্ড স্কুলের ২০-এর অধিক শিক্ষার্থীকে ব্ল্যাকমেইলিং করে যৌন নিপীড়নের ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয়দের মোবাইলে। এতে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা। প্রতারণার মাধ্যমে ছাত্রীদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করে ভিডিও চিত্র ধারণ করতেন স্কুলের সহকারী সিনিয়র শিক্ষক আরিফুল ইসলাম। র‌্যাব তাকে গ্রেপ্তার করলেও কিছু মানুষের অতিউৎসাহে ছড়িয়ে পড়েছে সেই সব অশ্লীল ছবি ও ভিডিও। এলাকাবাসী ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ঘটনা শক্ত হাতে দমন করার জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েছেন।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, ২০ জন ছাত্রীর কথা বলা হলেও যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে কমপক্ষে ৫০ থেকে ৬০ জন।
র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন  জানান, বিষয়টি নিয়ে অভিভাবকদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নাই। এটা নিয়ে আমরা কাজ করছি। ইতিমধ্যে আমরা কয়েকজনকে ধরে এনে মোবাইল থেকে ছবি-ভিডিও ডিলিট করে দিয়েছি।আরো যদি কারো কাছে থাকে আমরা খোঁজখবর নিচ্ছি, স্বেচ্ছায় ডিলিট না করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
শিক্ষা জীবন নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা: এদিকে স্কুলটি হঠাৎ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শিক্ষা জীবন থেকে এক বছর নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে। তাদের মতে, অপরাধী শিক্ষক আরিফুল ইসলামের উপযুুক্ত বিচার করা হোক। কিন্তু স্কুল বন্ধ হয়ে গেলে তো আমাদের ছেলেমেয়েদের শিক্ষাজীবন হুমকির মুখে পড়বে। এদিকে সোমবার দুপুরে জেলা শিক্ষা অফিসার সরজমিন স্কুলটি পরিদর্শনে গিয়েছেন। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংখ্যা, ফলাফল, বিদ্যালয়ের অবকাঠামো, শিক্ষার পরিবেশ, শিক্ষক-শিক্ষিকার সংখ্যাসহ নানা তথ্য সংগ্রহ করেছেন।
জেলা শিক্ষা অফিসার মো. শরিফুল ইসলাম জানান, জেলা প্রশাসকের নির্দেশে তিনি স্কুলটি পরিদর্শন করেছেন। স্থানীয় লোকজনের সঙ্গেও কথা বলেছেন। অভিযুক্ত শিক্ষক আরিফুল ইসলাম ও প্রধান শিক্ষকের বিষয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন। সার্বিক বিষয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে একটি রিপোর্ট দিয়েছেন। তবে তিনি বলেন, এই ঘটনার সঙ্গে আরো কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। এবং নিরপরাধ কেউ যেন হয়রানি না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখা হবে।

নূতনের অভিমান

এক সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী নূতন দীর্ঘদিন ধরে চলচ্চিত্রের পর্দায় অনুপস্থিত। সিনেমা থেকে কেন তার দূরে থাকা এবং অন্য নানা প্রসঙ্গ নিয়ে সম্প্রতি আলাপ হলো নৃত্য পটিয়সী সুনয়না এ পর্দাকন্যার সঙ্গে। প্রথমেই কেমন আছেন জানতে চাইলে একরাশ অভিমান ঝরা কণ্ঠে বললেন, আপনারা কি জানতে চান আমাদের কথা? আমাদের কথা এই জন্যই বললাম, সেই পুরনো দিনের সিনেমায় আমরা যারা অভিনয় করতাম সবাই নিজেদের একই পরিবারের সদস্য মনে করতাম। একে অন্যের সুখ দুঃখে সাথী হতাম। আপনি জানতে চাচ্ছেন নূতন কেমন আছে। কেমন যাচ্ছে তার দিনকাল তাই না? যদি জানতে চান শিল্পী নূতনের কথা, তার উত্তর হবে, খুব একটা ভালো নেই। এর কারণ বর্তমান ফিল্ম ইন্ড্রাস্ট্রির করুণ অবস্থা। দুঃখজনক বিষয় কি জানেন বর্তমানে যে ক’জন চিত্র প্রযোজক পরিচালক, শিল্পী কাজ করছেন তারা আমাদের কথা চিন্তাই করেন না।তারা ভাবেন নূতনরা তো ফুরিয়ে গেছেন তাদের আর নিয়ে লাভ কি? একজন শিল্পী সাংবাদিক কি কোনো দিন ফুরিয়ে যায়। এই সব পেশা তো মৃত্যুর আগ পর্যন্ত থেকে যায়। প্রতিবেশী দেশ কলকাতা, মুম্বই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির দিকে তাকান দেখবেন আমাদের ঠিক উল্টো চিত্র। তারা সিনিয়র শিল্পীদের সময়োপযোগী চরিত্রে নিয়মিত কাজ করাচ্ছেন। অমিতাভ বচ্চন, রেখা, হেমা, পশ্চিম বাংলার রঞ্জিৎ মল্লিক, সৌমিত্র, সাবিত্রী সবাইকে নিয়ে আজও চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে। ঠিক তার উল্টো চিত্র আমাদের। শুধু আমারই নয়, ববিতা ম্যাডাম, শাবানা ম্যাডাম, কবরী ম্যাডাম, সূচরিতা সবার দিন শেষ মনে করেন অনেক নির্মাতা। আমার কথাই বলি, নূতন যদি ফুরিয়ে যেত তাহলে শাাকিব খানের সঙ্গে ‘কিং খান’, ‘রংবাজ’ সুপারহিট হতো না। কত দুঃখজনক চিন্তা ভাবনা তাদের। আর নতুন কিছু নির্মাতা মনে হয় দ্বন্দ্বে ভোগে আমাদের মতো সিনিয়র শিল্পীদের নির্দেশনা দিবে কীভাবে তা ভেবে। আরে ভাই শিল্পী তো সব সময় পরিচালকের নির্দেশনা মেনেই তার চরিত্র পর্দায় ফুটিয়ে তোলে। এখানে সিনিয়র জুনিয়র মিলেই তো সফল একটি সিনেমা তৈরি হয়। এই শিল্পে সিনিয়র  জুনিয়র অবহেলিত সব শিল্পী আমার পরম আত্মীয়। চলচ্চিত্রে দীর্ঘ সময়ের পথচলায় প্রাপ্তি সম্পর্কে জানতে চাইলে এ অভিনেত্রী বলেন, দেখেন আমি নূতন আজও যখন কোনো অনুষ্ঠানে যাই, মার্কেটে যাই দর্শকরা আগ্রহ ভরে আমার সঙ্গে কথা বলে, জানতে চায় এখন সিনেমায় কেন আমার অল্প উপস্থিতি। এ প্রজন্মের দর্শকরা আমাকে চেনে জানে স্যোশাল মিডিয়ায় যোগাযোগ করে। এটাই তো আমার প্রাপ্তি। এ জীবনে আর কি লাগে বলেন। আজকাল এফডিসি যেতে ইচ্ছে করে না বলে জানান নূতন। কারণ হিসেবে বলেন, খুব কষ্ট হয় ইন্ডাস্ট্রির খারাপ অবস্থা দেখে। কান্না পায়। এই এফডিসি জন্ম দিয়েছে শিল্পী নূতনকে। অবক্ষয় চারপাশ ঘিরে ধরেছে। নূতনকে  প্রশ্ন করা হয়, আপনার এই যে অফুরন্ত অবসর কাটে কীভাবে? অভিনেত্রী বলেন, ব্যক্তি নূতন সব সময় ফুরফুরা থাকার চেষ্টা করেন। সংসার, একমাত্র মেয়ে নাতি সবাইকে নিয়ে ভালোই কাটে। মেয়ে দেশের বাইরে থাকে। আমি মাঝে মধ্যে বেড়াতে যাই। সামনে নতুন কোনো চলচ্চিত্রে আপনাকে দেখা যাবে কি? নূতন বলেন, দুটি ছবির কথা হচ্ছে। একটি ‘বাসর হবে মাটির ঘরে’। আরেকটি ছবির নাম এখনো ঠিক হয়নি।

৬ হাজার হজযাত্রী সুযোগ পাচ্ছে হাব

হজ এজেন্সি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় হজযাত্রী প্রতিস্থাপন আরও ৫ ভাগ বৃদ্ধি করেছে। সে হিসাবে পূর্বের ৫ শতাংশ কোটার বাইরেও আরও অতিরিক্ত ৫ শতাংশ হিসাবে ৬ হাজার হজযাত্রীর প্রতিস্থাপনের সুযোগ পাবে চলতি বছর হজ কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী ৫ শতাধিক হজ এজেন্সি।

সোমবার (১ জুলাই) হাব সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম হাব সদস্যদের দেয়া এক চিঠিতে বলেন, ‘গত ১৯ জুন হজ এজেন্সিগুলোর স্বার্থ সংরক্ষণে প্রতিস্থাপনযোগ্য হজযাত্রীর সংখ্যা বৃদ্ধি করার জন্য ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয়া হয়। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ সচিব আনিসুর রহমানের সঙ্গে তার দীর্ঘ আলোচনার পর যৌক্তিক দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ম মন্ত্রণালয় পূর্বের ৫ শতাংশের অতিরিক্ত আরও ৫ শতাংশ অর্থাৎ মোট ১০ শতাংশ পর্যন্ত হজ্বযাত্রী প্রতিস্থাপনের সুযোগ প্রদান সম্মত হয়েছে।

আগামী ৪ জুলাই থেকে চলতি বছরের হজ ফ্লাইট শুরু হচ্ছে। এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজারসহ মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালন করতে যাবেন।

সাভারে হেলে পড়েছে ৬ তলা ভবন

সাভারের হেমায়েতপুর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় একটি ছয়তলা ভবন পাশের তিনতলা ভবনের ওপর হেলে পড়ছে। এ ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন দুটি ভবন সিলগালা করেছে। নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে আবাসিক ওই ভবন দুটিতে থাকা বাসিন্দাদের।

রবিবার রাত ৮টার দিকে হেমায়েতপুরের জয়নাবাড়ি এলাকার মজিবর রহমানের মালিকানাধীন তারামন ভিলা নামে ছয়তলা ও আইয়ুব আলীর মালিকানাধীন রৌদ্রছায়া নামে তিনতলা বিশিষ্ট আবাসিক ভবন দুটি সিলগালা করে দেয় সাভার উপজেলা প্রশাসন। সাভার ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার লিটন আহমেদ বলেন, রবিবার সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার পারভেজুর রহমানের নেতৃত্বে হেমায়েতপুরের জয়নাবাড়ি এলাকায় হেলে পড়া দুটি বহুতল ভবন পরিদর্শনে যায় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। পরে দ্রুত ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সদস্যদের সহায়তায় ভবন দুটিতে বসবাসরত সমস্ত বাসিন্দাদের নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে নেওয়া হয়। এ সময় ছয়তলা ভবনটির নকশা না মেনে অনুমোদনহীন ভাবে তৈরি করা হয়েছে বিধায় তা পাশের ভবনের উপর হেলে পড়ায় দুটি ভবনই সিলগালা করে দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।

ইউএনও জানান, অনুমোদন না নিয়ে ভবন তৈরির বিষয়টি তদন্ত পূর্বক পরবর্তীতে মালিকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মৌয়ের ‘প্রতিশোধের আগুন’

মডেল ও অভিনেত্রী মৌ খান অভিনীত এবং মোহাম্মদ আসলাম পরিচালিত ‘প্রতিশোধের আগুন’ ছবিটি চলতি বছরের এপ্রিলে মুক্তি পায়। এ ছবিতে জায়েদ খানের বিপরীতে অভিনয় করেন তিনি। বর্তমানে ‘বান্ধব’ ও ‘বাহাদুরি’ নামে দুটি ছবি মুক্তির অপেক্ষায় আছে তার। এবার নিজের ক্যারিয়ারের চতুর্থ ছবিতে কাজ শুরু করতে যাচ্ছেন মৌ খান। তিনি বলেন, সম্প্রতি আমি পরিচালক রকিবুল ইসলাম রাকিবের ‘তুই আমার জান’ নামে একটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। আগামী ৫ই জুলাই এ ছবির মহরত অনুষ্ঠিত হবে। মহরতের পরই শুটিং শুরু হবে। এ ছবিতে আমার বিপরীতে নবাগত নায়ক নাহিদ ইরফান অভিনয় করবেন।

এরশাদের অবস্থা আশংকা জনক

রবিবার রাতভর নানা গুজবের পর গতকাল সোমবার দুপুরে সিএমএইচে এরশাদকে দেখতে যান স্ত্রী রওশন এরশাদ। এসময় তিনি স্বামীর শয্যাপাশে কিছু সময় পবিত্র কোরআন থেকে পাঠ করেন। পরে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি স্বামীর জন্য সবার দোয়া কামনা করেন। এছাড়া সিএমএইচে ভাইকে দেখে এসে গতকাল দুপুরে বনানীতে দলীয় কার্যালয়ে জাপার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানান, চিকিত্সকরা বলেছেন—এরশাদের অবস্থা স্থিতিশীল। কোনো ধরনের গুজব না ছড়ানোর অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, এখন থেকে দল, পরিবার কিংবা আইএসপিআরের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না জানানো পর্যন্ত কেউ যেন গণমাধ্যমে নিজ থেকে কিছু না লেখেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ যেন বিভ্রান্তিকর স্ট্যাস্টাস না দেন—সেই অনুরোধও করেন তিনি।

এদিকে, গতকাল সকালে সিএমএইচে এরশাদকে দেখতে যান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বিকালে হাসপাতালে যান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এছাড়া সন্ধ্যা ছয়টার দিকে সিএমএইচে গেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ।

এটা এখনো গুঞ্জন-গুজবের পর্যায়ে আছে : কাদের

মন্ত্রিসভার সদস্য সংখ্যা বাড়ানোর একটা সংবাদ এসেছে— এ বিষয়ে একজন সাংবাদিক জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আপনি কোথা থেকে নিউজ পেলেন? আমি জেনারেল সেক্রেটারি জানি না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক কিছুই হতে পারে। এটা এখনো গুঞ্জন-গুজবের পর্যায়ে আছে।’ তিনি বলেন, ‘কেবিনেট সাফল-রিসাফলের বিষয়টা প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। আমার মনে হয় কিছু কিছু পদ-পদবি এখনো খালি আছে। কাজেই এক্সপান্ড (সম্প্রসারিত) হতে পারে। যেমন মহিলা ও শিশু, এখানে কোনো মন্ত্রী নেই।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি জনগণের জন্য কিছুটা অস্বস্তিকর হলেও এর যৌক্তিক কারণ রয়েছে। এলএনজি আমদানি ব্যয় সমন্বয় করতেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে জ্বালানি মন্ত্রণালয়। এ সময় তিনি সংবাদপত্রের ওয়েজবোর্ড নিয়ে বলেন, ‘নবম ওয়েজবোর্ডের রোয়েদাদ শিগগিরই হবে, কিছুদিনের মধ্যেই দিয়ে দেব। এটা আর ঝুলিয়ে রাখা সম্ভব নয়। চলতি জুলাই মাসের মধ্যেই নবম ওয়েজবোর্ডের রোয়েদাদ ঘোষণা করা সম্ভব।’

আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ প্রক্রিয়ায় স্বাধীনতা বিরোধীদের পরিবারের সদস্যরা যুক্ত হতে পারবে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ ব্যাপারে অবস্থান একেবারেই স্পষ্ট। স্বাধীনতাবিরোধী, সাম্প্রদায়িক কাউকে স্থানীয় সরকার ও জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন দেইনি। তার মানে হচ্ছে এদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত থেকে আমরা এখনো সরে আসিনি। ২১ জুলাই থেকে সদস্য সংগ্রহ করা হবে বলে তিনি জানান।

সরকার জঙ্গিবাদ নিয়ে আতঙ্কে আছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ নিয়ে সরকার আতঙ্কিত নয়, সতর্ক আছে।’ বরগুনায় রিফাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতরা সরকারি দলের হলেও রেহাই পাবে না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যে বা যারাই জড়িত, তারা যদি সরকারি দলেরও কেউ হন; রেহাই পাবে না।

বন্দুকযুদ্ধে নিহত রিফাত হত্যা: প্রধান আসামি নয়ন বন্ড

বরগুনায় স্ত্রীর সামনে প্রকাশ্যে স্বামী রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাব্বির হোসেন নয়ন ওরফে নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। বরগুনা সদর থানার ওসি আবির মোহাম্মদ  এ খবর নিশ্চিত করেছেন । মঙ্গলবার ভোর আনুমানিক ৪টার পর জেলার পুরাকাটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।​

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রিফাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাব্বির হোসেন নয়ন ওরফে নয়ন বন্ডকে গ্রেফতার করতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুল্লাহ তাহেরের নেতৃত্বে বরগুনা সদর উপজেলার বুড়ির চর ইউনিয়নের পুরাকাটা নামক এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি চালায় নয়ন বন্ড ও তার সহযোগীরা। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলির এক পর্যায়ে নয়ন বন্ড বাহিনী পিছু হটে। পরে ঘটনাস্থলে তল্লাশি করে নয়ন বন্ডের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, এক রাউন্ড গুলি, দুইটি শর্টগানের গুলির খোসা এবং তিনটি দেশীয় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় চার পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

নয়ন বন্ডের বিরুদ্ধে আটটি মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এসব মামলায় নয়ন বন্ডকে অভিযুক্ত করে বিভিন্ন সময় আদালতে অভিযোগপত্র দাখিলও করেছে পুলিশ। এগুলোর মধ্যে দুইটি মাদক মামলা, একটি অস্ত্র মামলা এবং হত্যাচেষ্টাসহ পাঁচটি মারামারির মামলা রয়েছে।

এই হত্যাকাণ্ডে এখন পর্যন্ত দুই অভিযুক্ত আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তারা হলেন, মামলার এজাহারভূক্ত ১১ নম্বর আসামি অলি ও ভিডিও ফুটেজ দেখে শনাক্ত করা অভিযুক্ত তানভীর। সোমবার বিকেলে বরগুনার সিনিয়র জুডিসিয়্যাল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর কাছে স্বেচ্ছায় তারা এ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে আদালত তাদের জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়।

জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার নাজমুল হাসানকে তিনদিনের রিমান্ড শেষে একই আদালতে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। আদালত তার আরও পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। সাগর ও সাইমুন নামের অপর দুইজনের জন্য পুলিশ পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী তাদেরও পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বলে নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বরগুনা সদর থানার ওসি তদন্ত হুমায়ুন কবির।

অপরদিকে রিফাত শরীফ হত্যা মামলার দুই প্রধান আসামি সাব্বির আহমেদ নয়ন (নয়ন বন্ড) ও রিফাত ফরাজীর বিরুদ্ধে সোমবার ল্যাপটপ ছিনতাইচেষ্টা এবং শারীরিকভাবে জখম ও হুমকি দেয়ার পৃথক আরেকটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। বরগুনার জুডিশিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. নাহিদ হোসেন এ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. শাহ আলম গাজী জানান, ২০১৮ সালের ১৫ অক্টোবরে নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরাজীর নেতৃত্বে ৫-৬ জনের একটি সন্ত্রাসী দল বরগুনার চরকলোনি এলাকার আক্তারুজ্জামান নাসিরের ছেলে জিহাদ জামানের কাছ থেকে ল্যাপটপ ছিনতাই এর চেষ্টা করে এবং ল্যাপটপটি আছাড় মেরে পুরোপুরি গুঁড়িয়ে দেয় এবং জিহাদ জামানকে মারধর করে।

এরপর জিহাদের বাবা আক্তারুজ্জামান নাসির বাদী হয়ে নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরাজী ও অজ্ঞাতনামা ৫-৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালতের বিচারক আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। মামলায় আগের শুনানিগুলোতে নয়ন বন্ডের পক্ষের আইনজীবী ছিলেন আনিসুর রহমান মিলন ও রিফাত ফরাজীর পক্ষের আইনজীবী ছিলেন মোতালেব মিয়া। তবে এই শুনানিতে এদের কেউ আসামিদের পক্ষে দাঁড়াননি।

গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্ত্রীর সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী আয়শা আক্তার মিন্নি হামলাকারী সাব্বির আহমেদ নয়ন (নয়ন বন্ড) ও রিফাত ফরাজীর সঙ্গে লড়াই করেও তাদের থামাতে পারেননি। গুরুতর আহত রিফাতকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় নয়ন বন্ড, রিফাত ফরাজীসহ ১২জনের বিরুদ্ধে ২৭ জুন হত্যা মামলা দায়ের করেন রিফাত শরীফের বাবা মো. আ. হালিম দুলাল শরীফ। বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন জানান, পুলিশ এ পর্যন্ত ৮ জনকে এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করেছে। তাদের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাচ্ছে।