রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

সারাদেশে দুদকের অভিযান

বিশেষ প্রতিবেদক:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ২১

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অভিযোগ কেন্দ্রে আসা অভিযোগের ফলে রাজধানীসহ সারাদেশে ৫টি এনফোর্সমেন্ট অভিযান পরিচালিত হয়েছে। সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুদক টিম এসব অভিযান পারিচালনা করে।

রাজধানীর খিলগাঁওয়ে তিতাস গ্যাসের অনুমোদন ছাড়া অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদানের অভিযোগে অভিযান পরিচালনা করে দুদক।সমন্বিত জেলা কার্যালয়- ঢাকা-১ থেকে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

সরেজমিন অভিযানে দুদক টিম অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে। দুদক টিম জানতে পারে, এলাকাটিতে তিতাস গ্যাসের অনুমোদন না থাকলেও প্রায় ৪শ’ পরিবারের কাছ থেকে গড়ে ৩০ হাজার করে টাকা গ্রহণ করে তিতাস গ্যাসের কিছু অসাধু কর্মচারী এসব সংযোগ প্রদান করেছে। রাষ্ট্রীয় সম্পদের এ বিপুল অপচয়ের বিষয়ে অনুসন্ধানের অনুমোদন চেয়ে কমিশনে প্রতিবেদন উপস্থাপন করবে টিম।

এদিকে পাবনার বেড়া পৌর ভূমি অফিসে অভিযান পরিচালনা করে ব্যাপক অনিয়মের প্রাথমিক প্রমাণ পেয়েছে দুদক। জমি খারিজ করার জন্য সরকার নির্ধারিত ফি ১১৭০ টাকা হলেও এক ভুক্তভোগীর কাছ থেকে ২৫ শতাংশ জমি খারিজ করার জন্য ৫ হাজার টাকা চাওয়া হয়েছে।

দুদক হটলাইনে অভিযোগ আসার পর সমন্বিত জেলা কার্যালয়, পাবনার সহকারী পরিচালক মো. আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে একটি টিম অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানকালে দুদক টিম ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ও ওই অফিসের অফিস সহকারীর কাছ থেকে ভূমি উন্নয়ন কর বাবদ আদায়কৃত ৬০ হাজার ২৭৬ টাকার অতিরিক্ত ১ লাখ ৮ হাজার টাকা উদ্ধার করেছে। এসব টাকার ব্যাখ্যা তারা দিতে পারেননি।

অন্যদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, সুবর্ণচর, নোয়াখালীতে ভুয়া বিল ভাউচার দেখিয়ে সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে অভিযান পরিচালনা করে দুদক টিম। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সাবেক প্রধান সহকারী (বর্তমানে প্রধান সহকারী) এবং সাবেক মেডিসিন ক্যারিয়ার পরস্পর যোগসাজশে আত্মসাতের উদ্দেশে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, সুবর্ণচর শাখা, নোয়াখালীতে সরকারি টাকা স্থানান্তর করেন।

অভিযানে অভিযোগের বিষয়ে সাবেক প্রধান সহকারী আবু তাহেরকে মোবাইল ফোনে জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, সুবর্ণচরের বিভিন্ন বিলের টাকা তিনি সাবেক মেডিসিন ক্যারিয়ার মো. রুহুল আমিনের হিসাবে জমা রাখেন এবং পরবর্তীতে ওই টাকা থেকে উত্তোলন করে বিল ভাউচার সমন্বয় করেন। কিন্তু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিজস্ব হিসাবে টাকা কেন টাকা জমা করা হয়নি তারা কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

দুদক টিম সকল বিল ভাউচারের তথ্য সংগ্রহ করে কমিশন বরাবর বিস্তারিত প্রতিবেদন উপস্থাপন করবে বলে জানানো হয়েছে।

এদিকে জলমহালের ইজারার সরকারি টাকা পরিশোধ না করে আত্মসাৎ করার অভিযোগে এবং বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা ও ভিজিডির কার্ড প্রদানে অবৈধভাবে অর্থ আদায় ও গ্রাহক হয়রানির অভিযোগে সমন্বিত জেলা কার্যালয়, খুলনা থেকে দুটি পৃথক অভিযান চালিয়েছে দুদক টিম।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..