শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন

শরীয়তপুরে কিশোরীকে ধর্ষণ

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৩৯
শরীয়তপুরে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে আয়নাল বেপারী (২৪) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পালং মডেল থানা পুলিশ। আজ মঙ্গলবার দুপুরে শরীয়তপুর পৌর এলাকার ধানুকা গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় ২ জনকে আসামি করে ধর্ষিতার দাদা বাদী হয়ে পালং মডেল থানায় নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছে।

পালং মডেল থানা, ধর্ষিতার পরিবার ও মামলার এজহার সুত্রে জানাগেছে, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার বিকেনগর পশ্চিম কাজিকান্দি গ্রামের ইসহাক বেপারীর ছেলে আনোয়ার বেপারী ব্যবসা করার সুবাধে শরীয়তপুর পৌরসভা এলাকার ধানুকা গ্রামের সরকারী গোলাম হায়দার খান মহিলা কলেজ সংলগ্ন রিপন মিয়ার বাড়ীতে ভাড়া থাকে। আয়নালের পুর্ব পরিচিত ধানুকা এলাকার প্রবাসী দেলোয়ার হোসেনের স্ত্রী লাভলী বেগমের সগযোগীতায় প্রতিবেশী (মনিকা ১৪ নামের) এক কিশোরীর সাথে পরিচয় হয়। লাভলী বেগমের সহযোগীতায় মনিকাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গতকাল ১০ ফেব্রুয়ারী রাতে আয়নায় ঐ কিশোরীকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ধর্ষিতা ও তার পরিবারের। এ ঘটনায় আয়না ও লাভলীকে আসামী করে ধর্ষিতার দাদা বাদী হয়ে পালং মডেল থানায় নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছে। ঘটনার পর আয়নাল বেপারীকে পালং মডেল থানা পুলিশ গ্রেফতার করে।

ঘটনার শিকার ওই কিশোরির মা (রানু বেগম) বলেন, আমার মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রতিবেশী লাভলী বেগমের সহযোগিতায় আমার মেয়ের সর্বনাশ করেছে আয়নাল বেপারী। আমরা এর সঠিক বিচার চাই।আয়নালের ভাই জয়নাল বেপারী বলেন, আমার ভাই আয়নালকে মিথ্যা কথা বলে মামলা করে ফাঁসানো হচ্ছে।

পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আসলাম উদ্দিন বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে আয়নাল নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। ধর্ষিতাকে ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে ২২ ধারায় জবানবন্দী গ্রহনের জন্য আদালতে প্রেরনের প্রস্তুতি চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..